বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য:

বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা সকল ইউনিটেই পরীক্ষা দিতে পারবে । মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষা , মাদ্রাসা ও অন্যান্য শাখার শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে পারবে – B , C , E এই ৩ ইউনিটে । অনেকেই জানতে চাও একজন ভর্তি পরীক্ষার্থী একাধিক ইউনিটে পরীক্ষা দিতে পারবে কিনা?
হ্যাঁ অবশ্যই। তুমি যদি বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী হও তবে জাবির ৫ টি ইউনিটের সবগুলোতেই পরীক্ষা দিতে পারবা যদি তোমার যোগ্যতা থাকে।
তোমার যদি ইংরেজিতে B গ্রেড এবং বাংলায় A- থাকে তবে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের C ইউনিটে পরীক্ষা দিতে পারবা। তবে চান্স পেলে তুমি বাংলা ও নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ ব্যাতীত অন্য কোন বিভাগে ভর্তি হতে পারবা না।

অন্যান্য সকল ইউনিটে ৮০ মার্কের MCQ পরীক্ষা হবে। পরীক্ষার সময় ৫৫ মিনিট। সকল ইউনিটের MCQ পরীক্ষায় মোট পাশমার্ক ৩৩%। চারুকলা ও নাটকের জন্য ২০ মার্কের ব্যবহারিক পরীক্ষা নেয়া হবে। A ইউনিটের গণিত বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় গণিত অংশে নুন্যতম ৫০%, রসায়ন বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় রসায়ন অংশে নুন্যতম ৫০%, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় গণিত ও পদার্থ অংশে পৃথকভাবে নুন্যতম ৬০% এবং ইনফরমেশন এন্ড কমিউনিকেশন টেকনোলজি ভর্তির জন্য পদার্থ, গণিত ও আইসিটিতে পৃথকভাবে নুন্যতম ৫০% নম্বর পেতে হয়।

B ইউনিটের আইন ও বিচার বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় বাংলা ও ইংরেজি অংশে পৃথকভাবে ৬০% মার্ক পেতে হবে।

C ইউনিটে বাংলা বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় বাংলা অংশে নুন্যতম ৫০% এবং ইংরেজি পেতে হলে ইংরেজি অংশে নুন্যতম ৪০%, ইংরেজি বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় ইংরেজি অংশে নুন্যতম ৭০%, আন্তজার্তিক সম্পর্ক বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় আন্তর্জাতিক সম্পর্কের অংশে নুন্যতম ৭০%, জার্নালিজম এন্ড মিডিয়া স্ট্যাডিজ বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় বাংলা ও ইংরেজি অংশে পৃথকভাবে ৬০%, নাটক ও নাট্যতত্ত্ব এবং চারুকলা বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় সাধারণ জ্ঞান ও বিভাগ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয়ে নুন্যতম ৬০% মার্ক পেতে হবে।

D-ইউনিটের ফার্মেসি, প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান এবং মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় রসায়ন ও জীববিজ্ঞান উভয়অংশে পৃথকভাবে নুন্যতম ৫০% নম্বর পেতে হবে।

E-ইউনিটের বিবিএ (আইবিএ -জেইউ) তে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষায় ইংরেজি ও গণিতে পৃথকভাবে নুন্যতম ৪০% নম্বর পেতে হবে।

ভর্তি পরীক্ষা শুধুমাত্র ক্যাম্পাসেই হয়। প্রতিটা ইউনিটকে কয়েকটা শিফটে ভাগ করে পরীক্ষা নেয়া হবে। সকল শিফটে প্রশ্ন আলাদা হয়। তবে প্রশ্নের স্ট্যান্ডার্ড সেইম থাকে।

ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা যাবে না।

সাবজেক্ট চয়েজ, কোটা সংক্রান্ত সকল কাজ ভর্তি পরীক্ষার পর, মেরিট/ওয়েটিং লিস্টে নাম আসার পর।

প্রতি ভুল উত্তরের জন্য ০.২০ নাম্বার কাটা যাবে।

সকল ইউনিটের পরীক্ষা শুধু MCQ পদ্ধতিতে হবে। Written থাকবে না।

যারা আবেদন করবে তারা সবাই পরীক্ষা দিতে পারবে।

কত নাম্বার পেলে চান্স পাওয়া যাবে

জাবির সকল ইউনিটেই ভর্তি পরীক্ষায় অন্তত ৬৫% নাম্বার না পেলে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা নেই।

প্রশ্ন সহজ হলে অন্তত ৭০% লাগতে পারে। তবে D ইউনিটে ৭৫% নাম্বার লাগবে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে সকল ইউনিটেই বাংলা এবং ইংরেজি থেকে প্রশ্ন করা হয়।

আমরা সকলে একটা বিষয় অবগত যে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্ন প্যাটার্ন অন্য সকল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আলাদা।ঢাবির প্রিপারেশন নিয়ে জাবির প্রিপারেশন অসম্ভব।

এছাড়া জাবির B,E ইউনিটে সাধারণ গণিত থাকে। সব গ্রুপের শিক্ষার্থীকেই এই General Math উত্তর করতে হয় ।

জাবির B ইউনিট ( সমাজবিজ্ঞান অনুষদ, E ইউনিট ( BBA) ও ( IBA) তে পরীক্ষা দিতে চাইলে আপনাকে Math এর প্রিপারেশন নিতেই হবে।

E Unit এ গত বছর English Version প্রশ্ন হয়েছে। গনিত কোর্সে ভর্তি হতে চাইলে ইনবক্স কর।

সাধারন জ্ঞান এ ভালো করে এবং GK দিয়েই যারা চান্স পেতে চান,

তাদের জন্য সবচেয়ে সহজ হবে জাবির C এবং B তে চান্স পাওয়া।

কারন C তে জিকে থাকবে ৫০ নাম্বারের এবং B তে থাকবে ২০ নাম্বারের।

তাই জিকে তে ৫০ এ ৪০+ এবং ২০ এ যদি ১৭+ পাওয়া যায়, চান্স পাওয়া কোনো ব্যাপার ই না।

সহজ কথা হলো এই যে C এবং B Unit এ চান্স পেতে হলে জিকে তে ভালো করতেই হবে।

জিকের জন্য কী পড়তে হবে?

আর জাবির জিকে যেহেতু আলাদা তাই বাজারের প্রচলিত জিকে বই পড়ে খুব একটা লাভ হবে না

এবং এর জন্য সব পড়ার দরকার ও নেই।

প্রশ্ন আসবে নির্দিষ্ট টপিকস থেকে এবং সেটা হবে বিষয়ভিত্তিক।

কোটার আবেদন ভর্তি পরীক্ষার পর নেয়া হবে ।

ভর্তি পরীক্ষায় পাশ করলে তারপর কোটায় আবেদন করার সুযোগ পাবা ।

সাবজেক্ট চয়েজ ও নেয়া হবে ভর্তি পরীক্ষার পর , যদি তুমি মেরিট পজিশন পাও তখন ।

জাবিতে সবাইকে মেরিট পজিশন দেয়া হয়না ।

সিটের ১০ গুণ শিক্ষার্থীদের মেরিট পজিশন দেয়া হয় ।

অর্থাৎ সিট যদি ৪৫০ হয় তবে ৪৫০০ পর্যন্ত পজিশন দিবে । এরপরের সিরিয়ালে যারা থাকবে তাদেরকে শুধু Passed দেখাবে ।

অর্থাৎ তারা শুধু পাশ করেছে But not Selected . আর যারা ফেইল করবে তাদেরকে Failed দেখাবে ।

বেস্ট অব লাক ! KINGDOM OF NATURAL BEAUTY খ্যাত ” জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ” তোমাকে স্বাগতম।
সকলের জন্য শুভকামনা

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker